Blog, Health & Beauty

Coconut Oil For Skin: ত্বকের যত্নে নারকেল তেল আসলে কতটুকু কার্যকরী

Coconut Oil

Coconut Oil For Face: ত্বক ভালো রাখার জন্য নারকেল তেল কতটা উপকারী আপনি জানেন? কারণ, চুলের যত্নে নারকেল তেল (Coconut Oil For Hair) ব্যবহার আমরা সবাই প্রায় করেই থাকি। কিন্তু এই একই তেল যে আপনার ত্বকের জন্যেও খুবই ভালো, সেই কথা অনেকেরই অজানা। শীত পড়তেই ত্বকের নানা সমস্যা শুরু হয়ে যায়।

ত্বক রুক্ষ ও শুষ্ক(Dry Skin in Winter) হয়ে ওঠে। জ্বালা করতে থাকে। চুলকানি, ব়্যাশের মতো সমস্যাও দেখা দেয়। এই সব সমস্যাই সমাধান হতে পারে। যদি নিয়মিত মাখতে পারেন নারকেল তেল(Coconut Oil)। মুখে সরাসরিও ব্যবহার করতে পারেন। আবার অন্যান্য উপায়ও আছে। জেনে নিন নারকেলের গুণ(Benefits of Coconut Oil)। কীভাবে ব্যবহার করবেন…

জেনে নিন নারকেল তেলের গুণাগুণ: নারকেল তেলে রয়েছে ফ্যাটি অ্যাসিড- ত্বকের রুক্ষ, শুষ্ক ভাব দূর করে আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনার কাজ সবচেয়ে সহজে করতে পারে নারকেল তেল। এর মধ্যে রয়েছে ফ্যাটি অ্যাসিড। নারকেল তেলের এই উপকরণ ত্বকে আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। এ ছাড়া শীতের সময়ে দূষণের মাত্রাও অতিরিক্তভাবে বৃদ্ধি পায়। সেক্ষেত্রে ত্বকের ওপর একটা স্তর বা আবরণ দেখভালের জন্য রাখতে পারলে ভালো। যদি আপনি নারকেল তেল দিয়ে ম্যাসাজ করেন তাহলে ত্বকের ওপর একটি আবরণ বা আস্তরণ তৈরি হবে। এটি কাজ করবে একটি প্রোটেক্টিভ লেয়ার হিসেবে। আপনার ত্বককে রক্ষা করবে ধুলোবালি, ময়লা থেকে।

 

নারকেল তেল দূর করে বলিরেখার সমস্যা– ত্বকের সঠিকভাবে পরিচর্যা না হলে অকালেই দেখা দেবে রিঙ্কেলস বা বলিরেখার সমস্যা। এই সমস্যা দূর করার জন্য নারকেল তেল ব্যবহার করতে পারেন। সবচেয়ে সুবিধা হলো এই তেলের সঙ্গে কিছু মিশিয়ে ম্যাসাজের প্রয়োজন নেই। শুধু নারকেল তেল দিয়েই ম্যাসাজ করলেই উপকার পাবেন। বলিরেখার সমস্যা দূর করার পাশাপাশি নারকেল ত্বকের একদম গভীর স্তর পর্যন্ত প্রবেশ করে ময়শ্চার লক করে। তার ফলে শীতের রুক্ষ, শুষ্ক আবহাওয়াতেও আপনার ত্বক থাকবে উজ্জ্বল এবং মোলায়েম।

ত্বকের র‍্যাশ দূর করে নারকেল তেল– নারকেল তেলের মধ্যে রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপকরণ। তার ফলে ত্বকের কোনও র‍্যাশ, অ্যালার্জি ইত্যাদি কমাতেও সাহায্য করে নারকেল তেল। শীতকালে ত্বক রুক্ষ, শুষ্ক হয়ে ফেটে যায়। এর ফলে জ্বালাভাব অনুভব করা যায়। নারকেল তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে উপকার পাবেন। তবে যাদের ত্বক সেনসিটিভ এবং র‍্যাশ, ব্রন, অ্যালার্জি ইত্যাদির সমস্যা প্রবলভাবে দেখা দেয় তারা বিশেষজ্ঞের পরামর্শ না নিয়ে নারকেল তেল বা কোনও উপকরণই ব্যবহার করা উচিত নয়।

নারকেল তেল ভালো রাখে স্কিন টেক্সচার- ত্বকের গঠন অর্থাৎ স্কিন টেক্সচার ভালো রাখতেও সাহায্য করে নারকেল তেল। এই তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে ত্বকে মোলায়েম ভাব বজায় থাকে। তবে যাদের ত্বকের ব্রন এবং র‍্যাশের সমস্যা রয়েছে, যাদের ত্বক সেনসিটিভ এবং অয়েলি স্কিন- তারা নারকেল তেল ব্যবহার না করাই ত্বকের পক্ষে ভালো।

নারকেল তেল উচ্চমাত্রায় স্যাচুরেটেড। নারকেল থেকে বের করা হয় এই তেল। ১০০ শতাংশ ফ্যাট ও ৮০-৯০ শতাংশ স্যাচুরেটেড ফ্যাট।

তাই তাপমাত্রা কমতে শুরু করলেই নারকেল তেল জমে যায়। এই নারকেল তেলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাটি অ্যাসিড আছে। ভিটামিন ই আছে। নানা উপকারী উপাদান ও পুষ্টিগুণে ঠাসা নারকেল তেল আপনার ত্বকের জন্য খুবই ভালো।

নারকেল তেলে আছে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান। যা ত্বকের প্রদাহ নিয়ন্ত্রণ করে। আপনার ত্বকে কোনওরকম সংক্রমণ বা সমস্যা দেখা দিলে নারকেল তেল তা সারিয়ে তুলতে পারে। জার্নাল অফ ট্র্যাডিশনাল অ্যান্ড কমপ্লিমেন্টারি মেডিসিন-এ প্রকাশিত গবেষণায় এই উল্লেখ করা হয়েছে।

রোদ লেগে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে। সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি কিন্তু আপনার ত্বকে সানবার্ন ও প্রিম্যাচিওর এজিংয়ের অন্যতম প্রধান কারণ। ত্বক পুড়ে যায়।

আবার ত্বকে সহজেই বয়েসর ছাপ পড়ে। নারকেল তেল মাখলে এই সব ধরনের সমস্যাই থাকে নিয়ন্ত্রণে। ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ মলিকিউলার সায়েন্সে প্রকাশিত গবেষণায় এমন উল্লেখ করা হয়েছে।

নারকেল তেলে প্রচুপ পরিমাণে লউরিক অ্যাসিড ও মিরিস্টিক অ্যাসিড আছে। যা আপনার ত্বকের জন্য ভালো। ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে। ময়শ্চারাইজ করে। সহজেই ত্বক তার প্রাকৃতিক আর্দ্রতা হারায় না। শুষ্ক হয়ে যায় না। এই শীতে ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখার জন্য আপনি মুখে নারকেল তেল মাখুন।

কীভাবে মাখবেন নারকেল তেল?

আপনার হাতের তালুতে কয়েক ফোঁটা নারকেল তেল নিন। আঙুলের সাহায্যে সারা মুখে বিন্দু বিন্দু করে লাগিয়ে নিন। এবার হাতের তালুর চাপে ধীরে ধীরে মাসাজ করে নিন। সারা মুখেই ভালো করে মাসাজ করবেন। রাতে শুতে যাওয়ার আগে নিয়মিত নারকেল তেল মাসাজ করতে পারেন।

পরদিন সকালে উঠে মুখ ধুয়ে ফেলুন ক্লিনজারের সাহায্যে। আপনি স্নান করতে যাওয়ার ১ ঘণ্টা আগেও নারকেল তেল মাখতে পারেন।

কোন কোন দিকে খেয়াল রাখবেন?

তৈলাক্ত ত্বকে নারকেল তেল না লাগানোই ভালো। আগে চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করে নিন।

সারারাত নারকেল তেল মুখে না লাগিয়ে রাখাই ভালো। অতিরিক্ত পরিমাণে নারকেল তেল ব্যবহার করবেন না। ব্ল্যাকহেডস, হোয়াইটহেডসের মতো সমস্যা এড়িয়ে যেতেও এই নিয়ম মেনে চলতে হবে।

অ্যাকনে প্রোন ত্বকেও এই নারকেল তেল না লাগানোই ভালো। নারকেল তেল আপনার মুখের পোরস বন্ধ করে দিতে পারে। অ্যাকনের সমস্যা বাড়তে পারে।

দাগহীন উজ্জ্বল ত্বকের জন্য নারকেল তেলের একটি রেসিপি দিচ্ছি যা নরমাল টু ড্রাই স্কিনের অধিকারীরা অ্যাপ্লাই করে দেখুন –

২ টেবিল চামচ মসুর ডাল
২ চা চামচ নারকেল তেল
১ চা চামচ মধু
সামান্য হলুদ
১ চা চামচ দুধ
কয়েক ফোঁটা লেমন অয়েল
4.-Yogurt-And-Turmeric-Pack

সব উপকরণ একসাথে মিক্স করে মুখে , হাতে-পায়ে এবং গলায় লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে হালকা ঘষে গরম টাওয়েল দিয়ে চুলে ফেলুন। এতে করে বন্ধ পোরগুলো খুলে যাবে। ত্বকের গভীরের ময়লা উঠে আসবে এবং ত্বক উজ্জ্বল সফট হয়ে উঠবে। শেষে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে। এতে করে ওপেন পোরগুলো সংকুচিত হয়ে যাবে।

তাহলে তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারীরা কি করবেন? এই রেসিপিটি শুধু আপনাদের জন্য –

১/২ টেবিল চামচ নারকেল তেল
১ টেবিল চামচ টক দই
১/২ টেবিল চামচ চালের গুঁড়ো
১/২ টেবিল চামচ লেবুর রস
mask001উপকরণগুলো মিক্স করে পরিষ্কার মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট রেখে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারীরা জানেন ব্রণ নিয়ে কত সমস্যায় পড়তে হয় তবে এই প্যাকটি নিয়মিত অ্যাপ্লাইয়ে তৈলাক্ত ত্বকের গভীর ময়লা জমবে না । যার ফলে ব্রণের সমস্যা থেকে সহজেই পরিত্রান মিলবে।